28 C
New York
Saturday, August 15, 2020

Buy now

১০০ জন শিশুর মূখে হাসি ফুটিয়েছি এর চেয়ে আনন্দের আর কিছু নেই

সোনার চামচ মূখে নিয়ে অনেকের জন্ম হয়েছে বলে আমরা কথার কথা শুনি যদিও আসলে জন্মের সময় কেউ কিছুই মুখে নিয়ে জন্মে না।সুখ,সম্মান,প্রতিপত্তি দেখে মানুষ বলে থাকে অমুক সোনার চামচ মুখে নিয়ে জন্মেছিল বলেই আজ তার এতো সুখ।আমাদের চারদিকে তাকালে আমরা অসংখ্য শিশু কিশোর কিশোরীকে দেখি যারা সোনার চামচতো দূরে থাকুক কোন চামচ মুখে নেওয়ার সুযোগই পায়নি।দু বেলা দু মুঠো ভাত খেতে পায় কিনা সন্দেহ আছে।বেঁচে থাকার জন্য ওদের কত কিছুইনা করতে হয়।কেউ হাত পাতে দুয়ারে দুয়ারে তো কেউ রাস্তার আসে পাশে থেকে বোতল কুড়ায় কাগজ কুড়ায় আবার কেউ কেউ আরো নিচুতে নেমে গিয়ে চুরিও করে।এই সভ্য সমাজ ওদের নাম দিয়েছে পথ শিশু,ওদের নাম দিয়েছে টোকাই এবং আরো একটু সুন্দর বাংলায় কেউ কেউ বলছে সুবিধাবঞ্চিত শিশু। এখন কথা হলো ওদেরকে সুবিধাবঞ্চিত কে করেছে?এ সমাজ করেছে এ সমাজের মানুষ করেছে।আমরাও যেহেতু এ সমাজেরই একটি অংশ তাই এই দায় আমাদের এড়িয়ে যাওয়ার কোন সুযোগ নেই।সে লক্ষ্য নিয়েই আমরা ১০০ জন শিশুর মূখে হাসি ফুটিয়েছি এর চেয়ে আনন্দের আর কিছু নেই।

নতুন কাপড় পেয়ে আনন্দিত শিশুটি

দান নয়,সহযোগীতা নয় আমরা কিছু শিশুকে নতুন জামা জুতো কিনে দিয়েছি বলতে চাইনা বরং আমরা ওদেরকে ভালোবাসা বিলিয়েছি যে ভালোবাসাটুকু ওদের প্রাপ্য ছিল।সুন্দর আগামীর স্বপ্নে বিভোর আমরা এ সমাজের একটি অংশ হয়ে সমাজেরই বৃহত্তর একটি অবহেলিত গোষ্ঠীর পাশে দাড়িয়েছি আমাদের হৃদয়ে জমে থাকা ভালোবাসার কিছু অংশ দেবো বলে।আমরা ছবি তুলে সেগুলো ফেসবুক টুইটারে প্রকাশ করি তার মানে এই নয় যে আমরা আমাদের কাজের প্রচার প্রসার চাইছি।আমরা একটি ভালো কাজ করেছি সেটি অন্যদের সাথে শেয়ার করছি এ উদ্দেশ্যে যেন অন্যরাও উদ্বুদ্ধ হয়ে ভালো কাজে এগিয়ে আসতে পারে।

নতুন পোশাক সহ সুবিধাবঞ্চিত শিশুরা এবং আমাদের বন্ধুরা

পথশিশুদের সাথে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে চেয়েছিলাম আমরা। সেই লক্ষ্য নিয়ে দিনাজপুর বন্ধুসভার সদস্যদের নিজের জমানো টাকায় দিনাজপুর শিশুপার্কে ১০০ জন পথশিশুর মাঝে নতুন জামা বিতরণ করেছি এবং দেখেছি ওদের মূখে কি অসাধারণ হাসি যে হাসি লাখ টাকা দিয়েও কেনা যায় না। নিজেদের নাম না প্রকাশ করার শর্তে অনেকেই আমাদের সাথে এ কর্মযজ্ঞে শামিল হয়েছেন। তাদের প্রতি অশেষ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।আমাদের রাজশাহীর বন্ধু তাহমিদ হোসেন অন্তু যাদেরকে পথশিশু বলতে রাজি নয় বরং সুবিধা বঞ্চিত শিশু বলার দাবী জানিয়ে আসছে সেই সব সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য কিছু করতে পারার আনন্দ বলে বুঝানো যাবে না। তেমনই এক শিশু রাবেয়াকে প্রশ্ন করলাম নতুন জামা পেয়ে পেয়ে কেমন লাগছে?সে তার মুখে যে হাসি ফুটিয়ে তুলেছিল তা দেখে মনে হয়েছে গোটা পৃথিবীতে এর চেয়ে সুন্দর মুহুর্ত আর কোন দিন আসেনি।আমরা তাই স্বপ্ন দেখি সুন্দর আগামীর এবং এই স্বপ্ন পুরণে আপনারাও এগিয়ে আসুন। আপনারা যারা এমনই সব ভালোকাজের সাথে যুক্ত আছেন তারা সেসব লিখে পাঠান আমাদেরকে। [email protected] এই ইমেইলে।সাথে ছবিও পাঠাবেন। আমরা তা আন্তরিকতার সাথে প্রকাশ করবো।

ছোটদেরবন্ধু


ফক্রেঃ বৃবি বিজয়

কৃতজ্ঞতাঃ মোহাম্মদ আলী খন্দকার

 

আরও পড়ুনঃ

ছোটদেরবন্ধুhttps://www.chotoderbondhu.com
সুন্দর আগামীর স্বপ্ন দেখতে দেখতে জীবনের এক একটি দিন পার করা।সেই ধারাবাহিকতায় ছোটদেরবন্ধু গড়ে উঠছে তিল তিল করে।

Related Articles

অদ্বিতীয়া রাজকন্যা সিমরিন লুবাবা

রুপকথার গল্পে তোমরা অনেকেই রাজকন্যা,রাজপুত্রর গল্প শুনে থাকবে। সেই রাজকন্যা আকাশ থেকে নেমে আসে। কিন্তু তোমাদেরকে আজকে আমরা এক সত্যিকারের রাজকন্যার কথা...

বোকা মানুষ ও পৃথিবী

দুটি অদ্ভুত প্রাণী মহাশূন্যে ঘুড়ে বেড়াচ্ছে।দেখতেও বেশ ভয়ংকরই।ওরা তো পৃথিবীর কেউ নয়।নিশ্চই মহাশূন্যে আমাদের কল্পনার চেয়েও মিলিয়ন,বিলিয়ন আলোকবর্ষ দূর থেকে ওরা এসেছে।শরীরে তাকালে প্রায় ...

শিশুতোষ চলচ্চিত্রঃ ফাইন্ডিং ডোরি

ডরি,একটি ছোট্ট সুন্দরী নীল মৎস্য। যার কি না ভুলে যাওয়া ব্যামো আছে। কোনো কিছু মনে রাখতে পারে না। তাই তার পিতা-মাতা অনেক চিন্তিত তার এই রোগ নিয়ে। একসময় ডরি হারিয়ে যায় তার পিতা-মাতা থেকে।

Stay Connected

20,459FansLike
2,296FollowersFollow
0SubscribersSubscribe

Latest Articles

অদ্বিতীয়া রাজকন্যা সিমরিন লুবাবা

রুপকথার গল্পে তোমরা অনেকেই রাজকন্যা,রাজপুত্রর গল্প শুনে থাকবে। সেই রাজকন্যা আকাশ থেকে নেমে আসে। কিন্তু তোমাদেরকে আজকে আমরা এক সত্যিকারের রাজকন্যার কথা...

বোকা মানুষ ও পৃথিবী

দুটি অদ্ভুত প্রাণী মহাশূন্যে ঘুড়ে বেড়াচ্ছে।দেখতেও বেশ ভয়ংকরই।ওরা তো পৃথিবীর কেউ নয়।নিশ্চই মহাশূন্যে আমাদের কল্পনার চেয়েও মিলিয়ন,বিলিয়ন আলোকবর্ষ দূর থেকে ওরা এসেছে।শরীরে তাকালে প্রায় ...

শিশুতোষ চলচ্চিত্রঃ ফাইন্ডিং ডোরি

ডরি,একটি ছোট্ট সুন্দরী নীল মৎস্য। যার কি না ভুলে যাওয়া ব্যামো আছে। কোনো কিছু মনে রাখতে পারে না। তাই তার পিতা-মাতা অনেক চিন্তিত তার এই রোগ নিয়ে। একসময় ডরি হারিয়ে যায় তার পিতা-মাতা থেকে।

অতিথি একজন উদীয়মান শিশু অভিনেত্রী

বাংলাদেশে যে সব শিশু শিল্পীদের আমরা টিভিতে দেখতে পাই বা পত্রিকার পাতায় ছবি দেখি আজ আমরা তাদেরই একজনের কথা বলবো। ওর নাম অতিথি ইসরাত। পুরো নাম ইসরাত জাহান অতিথি।

কারোর সহমর্মিতা এবং সহানুভূতি চাচ্ছি না

কারোর সহমর্মিতা এবং সহানুভূতি চাচ্ছি না। ছো্টবেলায় জীবনের প্রথমবারের মত স্কুলে গিয়েছি , - এই ভোটকা , তুমি এত্ত মোটা কেন ?বাসায়...