অপমৃত্যু গল্প 

অ তে অপমৃত্যু

লেখাঃ এম কে নিহাল “বেঁধে রেখো বাঁশি আমি দেবো তাতে সুর  প্রয়াস যত আশি আমি চলেছি বহুদূর!” হর্নের শব্দ আর হর্নের শব্দ, কিছুই মাথায় আসে না, প্রতিদিন এই শব্দের শিকার হতে হতে অভ্যস্ত হয়ে গেছে আমার কানটা, কানটা আমায় মাঝে মাঝে প্রশ্ন করে ‘তুই আমার জন্য কি করেছিস, পেরেছিস কোনো খুশির বাক্য আমার দ্বারা গমন করাতে? যতবার তুই তমা’কে বলেছিস তুই বিস্তৃত রোদে মাখা বালুকনার অভ্যন্তরে থাকা ভেজা বালুর মতো মিথ্যেবাদী নস, তুই যতবারই সত্যি প্রকাশ করতে গিয়েছিলি ততবারই আমাকে গ্রহণ করিয়েছিস এক একটি তিক্ত কথা, তোর বরঞ্চ মঙ্গল কামনা…

 2,179 total views,  15 views today

বিস্তারিত পড়ুন
আরোহীকে খুঁজে পাওয়া গল্প ছোটদের লেখালেখি পথশিশু সাহিত্য 

আরোহীকে খুঁজে পাওয়া

আরোহীকে খুঁজে পাওয়া । ধানমন্ডী লেক -এ একা একা হাঁটছে তরুন । এস.এস.সি পরীক্ষার পর আর স্কুল বন্ধুদের কারো সাথেই দেখা হয় নি। আজ তাদের সাথে দেখা করার কথা । এক সপ্তাহ থেকে দেখা করার জন্য পরিকল্পনা করা হচ্ছিল । শুরু থেকে সবাই অনেক আগ্রহী ছিল। কিন্তু আজ কারো দেখা নাই। ঢাকায় এসে গত চার বছরে সবাই নিজ নিজ জীবনে নিয়ে নিজের মতো করেই ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। কোচিং শেষ করে বের হয়ে সবাইকে কল দিল। কিন্তু সবার কথা শুনে বুঝলো এতদিনের বন্ধুত্ব আর ভালোবাসা সবই স্বার্থের প্রয়োজনে ,স্বার্থ ফুরালেই বন্ধত্বের…

বিস্তারিত পড়ুন
শেষ গল্প গল্প ছোটদের লেখালেখি সাহিত্য 

শেষ গল্প

শেষ গল্প । ২০১৯ সাল। সবুজ শ্যামল একটি দ্বীপ। চারপাশে গভীর ব্যস্থতা। আজ সমুদ্রও যেন খুব ব্যস্ত। এই ব্যস্ততার মধ্যে উদাস মনে আমি ফুটপাত দিয়ে হাঁটছি।ঠিক এই সময়ে বসের ফোন এলো। কল ধরে কানে দিলাম। বস বিনা ভূমিকায় বলল, এক সপ্তাহের মধ্যে সেই গল্পকারকে খুজে বের করতে না পারলে এই গোয়েন্দা বিভাগে তোমার আর জায়গা নেই। কল কেটে দিল। এই নিয়ে তিনবার একই কথা বলেছে বস। ফোন পকেটে রাখতেই চোখে পড়লো পাশের গাছে সেই নিখোজ গল্পকারের আরেকটি গল্প। এই গল্পটির কোনো তুলনাই হয় না। এতো অসাধারণ গল্প কোনোদিন কোনো লেখকের…

 2,735 total views,  31 views today

বিস্তারিত পড়ুন
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গল্প ছোটদের লেখালেখি সাহিত্য 

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

১৯৫২ সালে ঢাকায় আসে এক শিশু তখন তার বাবা কারাগারে ছিল। এরপর তার বাবাকে বদলি করে নিয়ে যাওয়া হয় ফরিদপুরে। তার বাবার বদলির কারণে তারাও ফরিদপুরে চলে যায়। ১৯৫৪ সালে তার বাবা আবার তাদের পরিবারসহ ঢাকায় আসল। সেই শিশুটি ছোট থেকেই বাবার অভাববোধ করতেন। এরপর সেই শিশুটির বাবা মিনিস্টার ছিলেন। আর শিশুটিকে স্কুলে ভর্তি করা হলো। যখন শিশুটি কারাগারে তখন তারা বাড়ি ছাড়া হলেন। তার বাবা কারাগারে থাকার কারণে বার বার স্কুল থেকে নাম কেটে দেওয়া হতো। ৭ই মার্চের পর তাদের পরিবারকে গ্রেফতার করা হয়। তখন তিনি সন্তান সম্ভাবনা ছিল।…

 2,618 total views,  20 views today

বিস্তারিত পড়ুন
উল্টো মানুষ ধ্বংস করছে আমাদের ধ্বংস করছে পৃথিবী গল্প ছোটদের লেখালেখি সাহিত্য 

আমি বৃক্ষ বলছি

আমি বৃক্ষ বলছি । আমার বয়স প্রায় ৩০ বছর। আমাকে যে লালন পালন করতেন তিনি ১০ বছর আগে এক দূর্ঘটনায় মারা যান। এরপর থেকেই অযত্নে বড় হচ্ছি আমি। কষ্টে-সৃষ্টে আমার দিন চলে যায়, খুব কান্না পায়। এখন বিশ বছর আগের পৃথিবীর কথা বলি, তখন আমার বয়স সবেমাত্র দশ। কী সুন্দর ছিল এই পৃথিবী। সবুজ গাছে ভরা ছিল। মানুষও ছিল খুব ভালো। তাদের সাথে গাছ-গাছালির খুব ভালো বন্ধন ছিল। কিন্তু এখন তো এসব কিছুই দেখা যায় না। উল্টো মানুষ ধ্বংস করছে আমাদের ধ্বংস করছে পৃথিবী। আগে আমার পাখি বন্ধুরা আমার সাথে…

 1,328 total views,  3 views today

বিস্তারিত পড়ুন
গল্প 

আমার ছেলে বেলা

মিশকাতুল আইন নানজিবা বাড়ির পূর্ব দিকটায় তখনো ঘর ওঠেনি। শ্যাওলাধরা দেওয়াল ধরে বেড়ে উঠেছে কিছু গুল্ম আর একটা ডুমুর গাছ। পুরো বাড়িই তখন আমার খেলাঘর। বলা ভাল আমার রাজ্য, আর আমি সেই রাজ্যের রাজা। খুব ছোটবেলায় খেলতে খেলতে হঠাৎ একদিন দেখি আমার রাজ্যে কিছু অতিথিও থাকে। ডুমুর গাছটার দুটো পাতা দিয়ে সংসার পেতেছে এক টুনটুনি। তার দুটো বাচ্চা সারাদিন ডাকাডাকি করে কিচিরমিচির করে। তাদের ঘরটা ঠিক আমার হাঁটুর উচ্চতায়। আমি মাটিতে বসে কান পাতি। বুঝতে চেষ্টা করি ওরা কী বলছে।ওদের ক্ষুধা পেয়েছে ভেবে রান্নাঘর থেকে চাল আনি, ডাল আনি।ওরা কিছু…

 2,362 total views,  1 views today

বিস্তারিত পড়ুন
গল্প 

একটি কুকুরের আত্মকাহিনী

মিয়ানা আহমেদ আমার কোনো নাম নাই। তয় বৈজ্ঞানিকরা আমার নাম দিছে ক্যানিছ লুপাস ফ্যামিলিয়ারিস। শালার বৈজ্ঞানিক আর নাম পায় নাই। আর মাইনষে আমারে ডাকে কুকুর বা কুত্তা নামে। আমি মাইনষের কথা খুব একটা বুঝি না। হালারপুতেরা ফরেন ভাষায় কথা কয়। মাথার উপর দিয়া যায়। মজার ব্যাপার হ্যারাও আমার কথা বোঝে না। ঘেউ ঘেউ। তিন বছর আগে আমার জন্ম হইছে প্রাইমারী স্কুলের পাশের গোডাউনটার নিচে। ওইটাই আমার বাসা। হোমল্যান্ড। মায়ে আর আমি থাকতাম। একদিন হঠাৎ কইরা সিটি কর্পোরেশনের লোকজন আইসা মায়েরে গলায় বেড়ী দিয়া মাইরা ফালাইল। আমি ছোট আছিলাম দেইখা আমারে…

 2,143 total views,  2 views today

বিস্তারিত পড়ুন
গল্প 

টেরোরিষ্ট

লেখাঃ জাজাফী ওয়াশিংটন ডিসির ব্যস্ত রাস্তার ফুটপাত ধরে অনেক মানুষ নিজ নিজ গন্তব্যের পথে অবিরাম হেটে চলেছে।সবাই ভীষণ ব্যস্ত।বলতে গেলে তখনো শহরের ঘুম ভাঙ্গেনি অথচ মানুষ ছুটছে তার কর্মস্থলে।সে জন্যই বলা হয়ে থাকে নিউইয়র্ক আর ওয়াশিংটন শহর কখনো ঘুমায় না।পথে যেতে যেতেই হয়তো কেউ কেউ সেরে নিচ্ছে জরুরী যোগাযোগ।অনেকে কানে মোবাইল ধরে কথা বলছে আর হাটছে।কেউ কেউ প্রাতরাশ সেরে বাসায় ফিরছে কানে হেডফোন লাগিয়ে গান শুনতে শুনতে।সেই সব পথচারিদের মধ্যে শেহজাদও আছে।শেহজাদ হাওয়ার্ড ইউনিভার্সিটিতে পোষ্টগ্রাজুয়েট করছে।ওয়াশিংটন ডিসিতে মেরিডিয়ান হিল পার্ক নামে যে পার্কটি আছে রোজ সকালে অন্য অনেকের মত শেহজাদও…

 6,758 total views,  1 views today

বিস্তারিত পড়ুন
গল্প 

মোতালেব স্যারের বদলি

সাদিক আল আমিন ব্যাপারটা সবার কাছে হাস্যকর মনে হলেও রোকনের কাছে সেটা কোনোমতেই হাস্যকর নয়। বরং অতিরিক্ত লজ্জাজনক। লজ্জায় নিজের লাল হয়ে যাওয়া ফর্সা মুখটা ব্যাগের ভেতর ঢুকিয়ে ফেলতে ইচ্ছে করছে তার। এইমাত্র প্যান্ট ভিজিয়ে ফেলেছে সে। আনিস স্যারকে বারবার অনুরোধ করা সত্ত্বেও তিনি রোকনকে বাথরুমে যেতে দেননি। আর নিম্নচাপের অবস্থাটাও ছিলো ভয়াবহ। সহ্য করতে না পেরে রোকন প্যান্টেই কাজটা সেরে ফেলে। আর এই ঘটনা দেখে ক্লাসের পরিবেশ তুঙ্গে উঠেছে। ক্লাসের দজ্জাল ছেলেগুলো তাকে দেখে হো হো করে হাসছে। কুটনী মেয়েরা তাকে নিয়ে কূটনৈতিক বৈঠকে বসেছে আর মুখ চেপে হাসছে।…

 4,988 total views,  1 views today

বিস্তারিত পড়ুন
গল্প মুক্তিযুদ্ধ 

কি অদ্ভূত এ পৃথিবী, দেখ।মানুষ মানুষকে গুলি করে মারে, জবাই করে মারে!

কি অদ্ভূত এ পৃথিবী, দেখ।মানুষ মানুষকে গুলি করে মারে, জবাই করে মারে! আমার বাড়ি বৃহত্তর রংপুরের লালমণিরহাট জেলার কুলাঘাট ইউনিয়নের বরুয়া গ্রামের গোবিন্দপাড়াস্থ গোবিন্দবাড়িতে। ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর ডাকে বাঙালিদের সব রকম “অসহযোগিতার” ফলস্বরুপ খাবার-দাবার বন্ধ হয়ে যাবার ফলে অনাহারে মৃত্যুর হাত থেকে বাঁচতে বর্ডারের নিরাপত্তার দায়িত্ব ফেলে রেখে ফুলবাড়ি বর্ডার থেকে পলায়নরত পাকিস্তানি সীমান্ত রক্ষীবাহিনী কুলাঘাট হয়ে সকালের দিকে লালমনিরহাট শহরে প্রবেশ করার মুখে অসংগঠিত লোকজন কর্তৃক প্রতিরোধের সম্মুখিন হয়ে শুরু করে গোলাগুলি। আর এর প্রেক্ষিতে লালমনারহাট শহরের উত্তরদিকে উপ-শহর আপইয়ার্ডে বসবাসকারি অবাঙালি “বিহারী”রা সংগঠিত হয়ে নেমে পড়ে পাকিস্তানী বাহিনীর পক্ষে।…

 8,187 total views,  3 views today

বিস্তারিত পড়ুন