শিশুতোষ চলচ্চিত্র 

লোডশেডিং বেশিক্ষণ থাকে না,আলো আসবেই

টুপুরের বয়স তখন মাত্র সতের দিন আর ওর এক মাত্র ভাই টিকলুর বয়স আড়াই বছর।এমন একটি দিনে সড়ক দুর্ঘটনায় আকাশের ওপারে চলে যায় ওদের বাবা মা।ছোট্ট টুপুরকে বুকে জড়িয়ে হয়তো খুব করে কাদে তার ভাই।পরিবারের সবাই ওদের দুই ভাই বোনকে খুব ভালবেসে বড় করতে থাকে।ভাই বোনের মধ্যে দারুণ বন্ধুত্ব।যেন একে অন্যের সম্পুরক। টিকলু দুষ্টু হাড়ে হাড়ে।তার চাঞ্চল্য,তার বাকপটুতা সবাইকেই মুগ্ধ করে।এক বিকেলে গলির মোড়ে ক্রিকেট খেলতে গিয়ে টিকলু আউট হয়ে গেলে সে নিজের ব্যাট থাকার কারণে আউট অস্বীকার করে।যখন বন্ধুদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হচ্ছিল ঠিক তখন একটা ট্যাক্সি এসে থামে…

83,465 total views, 117 views today

বিস্তারিত পড়ুন
বিনোদোন মুভি রিভিউ শিশুতোষ চলচ্চিত্র 

বাবার নাম গান্ধীজী এক অনন্য শিশুতোষ সিনেমা

ছেলেটির নাম কেচোদাস। কে রেখেছিল এই নাম তা সে জানতো না।থাকতো রাস্তায় রাস্তায়।কখনো ভিক্ষা করতো আবার কখনো চুরিও করতো।রাস্তার ধারে কেউ প্রসাব করছে দেখলেই গিয়ে চাদা তুলতো আর চাদা দিতে না চাইলে ধাক্কা দিয়ে দৌড়ে পালাতো।কেচোদাসের বয়স ১২।তার চেয়ে বয়সে যারা ছোট এবং ভিক্ষা করে সে তাদের ওস্তাদ।নানা সময়ে তাদেরকে সে শেখায় কিভাবে ভিক্ষা করলে বেশি ভিক্ষা পাওয়া যায়।কেচো কিন্তু জানেইনা কে তার বাবা কে তার মা।এলাকার মাস্তানদের সাথে ভালো খাতির ওর কিন্তু তার পরও তারা ওর ভিক্ষার টাকায় ভাগ বসায়।একদিন সে দেখে এক লোক রাস্তায় দাড়িয়ে প্রসাব করছে কাছে…

95,510 total views, 121 views today

বিস্তারিত পড়ুন
শিশুতোষ চলচ্চিত্র 

গল্পটা মানহার : একজন ভাগ্যবতী শিশুর স্বল্প দৈর্য্য উপাখ্যান

লেখাঃ মু.দেলোয়ার হুসাইন —— হরেক রকম  নাগরিক সমস্যা আর যন্ত্রণাক্লিষ্ট  মেগাসিটি  ঢাকা ।  অতিরিক্ত জনসংখ্যায় জর্জরিত এই শহরে পাল্লা দিয়ে বেড়েই চলেছে  নানামাত্রিক  অপরাধ।  পত্রিকার পাতায় আমরা প্রায় দেখি হারানো বিজ্ঞপ্তি । যাদের বেশিরভাগই  শিশু। আর কিডন্যাপ হওয়া বা হরিয়ে যাওয়া  এই শিশুদের দিয়েই একটি মহল গড়ে তুলে অপরাধের রাজত্ব । ঢাকা শহরে যত্রতত্র ভিক্ষুক। হরহামেশায় শিশু চুরি হচ্ছে, তারা কোথায় যাচ্ছে! কী তাদের ভবিষ্যৎ! এমনই সামাজিক সমস্যাকে সামনে তুলে আনতে শুরু হলো স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘গল্পটা মানহার’। তেমনি চুরি হয়ে যাওয়া একটি শিশুর নাম মানহা । বাবার একটু অসচেতনতার ফলে চুরি…

20,322 total views, 2 views today

বিস্তারিত পড়ুন
শিশুতোষ চলচ্চিত্র 

পুত্র সিনেমাটি মুক্তির সময় আর কোন সিনেমা মুক্তি দেওয়া হবেনা

জাজ মাল্টিমিডিয়ার ডিজিটাল প্রযুুক্তিতে তৈরি হয়েছে ‘পুত্র’ সিনেমাটি যদিও তা এখনো মুক্তি দেওয়া হয়নি। নানা কারণে সেটা ঝুলে আছে। এটি এমন একটি সিনেমা যা আমাদের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে আছে কেননা এটি নির্মিত হয়েছে অটিষ্টিক শিশুদের নিয়ে। বাংলাদেশে এই প্রথম এ ধরনের গল্পে সিনেমা করা হলো যা সত্যিই প্রশংসার দাবীদার। অনেকদিন ঝুলে থাকা মুক্তির অপেক্ষায় থাকা সিনেমাটিকে মুক্তি দিতে বিশেষ করে দেশের সব কটি প্রেক্ষাগৃহে প্রদর্শনীর জন্য নির্দেশ দিয়েছে তথ্য মন্ত্রনালয় যা সত্যিই প্রশংসার দাবীদার কেননা এ ধরনের সিনেমা সবার দেখা উচিত।এমনকি এ সময়ে অন্য কোন সিনেমা মুক্তি না দেওয়ার জন্যও বলা…

12,945 total views, 2 views today

বিস্তারিত পড়ুন
শিশুতোষ চলচ্চিত্র 

দ্য বুক অব হেনরিঃ ১২ বছরের ছেলে মাকে যেভাবে খুনী হতে শেখায়

লেখাঃ জাজাফী   হেনরীর মা একটি রেস্তোরায় কাজ করে।হেনরি তার ছোটভাইকে দেখে রাখে একসাথে স্কুলে নিয়ে যায়।হেনরির বয়স ১২ বছর।কিন্তু আশ্চর্যের ব্যাপার হলো তার মা তার সাথে পরামর্শ করা ছাড়া কোন কিছুই করেনা।সবাই অবাক হয়ে ভাবে কী আশ্চর্য তুমি পরামর্শ নিতে চাইছো তোমার ১২ বছর বয়সী ছেলের কাছে! কিন্তু হেনরির মা জানে হেনরি ছোট হলেও অত্যন্ত মেধাবী এবং বড়দের চেয়েও সিদ্ধান্ত গ্রহণে বুদ্ধিদীপ্ত। হেনরির বাবা নেই।সিনেমায় দেখা যাবে হেনরি খুব ছবি আকা আর বৈজ্ঞানিক গবেষণা করতে ভালোবাসে।সে ফার্ম হাউসে বসে তার ভাইকে নিয়ে কত কিছু বানায় আর নিয়মিত ডায়েরি লেখে।মূলত…

4,587 total views, no views today

বিস্তারিত পড়ুন
বিনোদোন শিশুতোষ চলচ্চিত্র 

ধানাকঃ পৃথিবী সেরা এক ভাই বোনের গল্প

—জাজাফী   আমি সব সময় বলি “আমার বোন পৃথিবীর সেরা বোন” কথাটা কেন বলি সেটা এখন বলতে চাইছিনা। আজ বরং চলুন অন্য এক বোনের গল্প শুনি।আমার দেখা পৃথিবী সেরা বোন হতে পারে সে।বয়স কতইবা হবে এই ধরুন বার কিংবা তের বছর।এই ছোট্ট মেয়েটিকে আমি অনায়াসে পৃথিবী সেরা বোন বলে দিচ্ছি দেখে জানি সবাই ভ্রু কুচকাবে।কপালের ভাজ আরো দৃঢ় হবে।কিন্তু গল্পটা শোনার পর আশা করি অনুভূতিটা বদলে যাবে।ধানাকঃ পৃথিবী সেরা এক ভাই বোনের গল্প।   পৃথিবী সেরা এই বোনের নাম পরী।যে তার এক মাত্র ভাইয়ের কথা ভেবে যথেষ্ট মেধাবী হওয়ার পরও…

বিস্তারিত পড়ুন
বিনোদোন শিশুতোষ চলচ্চিত্র 

চার্লি এন্ড দ্য চকলেট ফ্যাক্টরী

ছোটদের জন্য পৃথিবীটা সবচেয়ে আনন্দের আর সেই আনন্দকে বাড়িয়ে দিতেই বিশ্বব্যাপী নির্মিত হয়েছে কেবল মাত্র ছোটদের উপযোগি অনেক অনেক শিশুতোষ সিনেমা যেমন ম্যাক্সকিবল: দ্য বিগ মুভ, ব্লাংক চেক,পিপ্পি লংস্টকিংস সহ আরো অনেক। আজ আমি তারই একটির কথা লিখতে বসেছি। হলিউড সিনেমার জগতে বিখ্যাত নাম। এখানেই তৈরি হয়েছে অসাধারণ এক গল্প নির্ভর শিশুতোষ সিনেমা ” চার্লি এন্ড দ্যা চকলেট ফ্যাক্টরী ” প্রেক্ষাপটঃ বিশ্বের সবচেয়ে নামকরা চকলেট ফ্যাক্টরীর মালিক উইলি ওয়াংকার। হঠাৎ কেউ একজন তার চকলেট উৎপাদনের গোপন কোড বা পদ্ধতি অন্যের কাছে ফাস করে দেয়। এর পর তিনি মনে কষ্ট নিয়ে…

বিস্তারিত পড়ুন
বিনোদোন শিশুতোষ চলচ্চিত্র 

ব্লাংক চেক শিশুতোষ সেরা সিনেমা

ব্লাংক চেক শিশুতোষ সেরা সিনেমা। ১৯৯৪ সালে নির্মিত অসাধারণ একটি কমেডি মুভি।ওয়াল্ট ডিজনির ব্যানারে মুক্তিপ্রাপ্ত এই ছবিটির পরিচালকঃ রুপার্ট উইংরাইট। প্রযোজনাঃ করেছেন গ্রে অ্যাডেলসন। গল্পঃ ব্লেক স্নাইডার এবং কলবি কার। সংগীতঃনিকোলাস পিকে পরিবেশনায়ঃ ওয়াল্ট ডিজনি পিকচারর্স মুক্তিঃ ফেব্রুয়ারি ১১,১৯৯৪(আমেরিকা)আগষ্ট ৫,১৯৯৪ (ইংল্যান্ড) পরিধিঃ৯৪ মিনিট। ভাষাঃ ইংরেজী। বাজেটঃ ১৩ মিলিয়ন ডলার। বক্স অফিসঃ ৩০,৫৭৭,৯৬৯ (ডমেস্টিক) পটভূমিঃ ঘটনাটা শুরু হয়েছিল ব্যাংক ডাকাতির অভিযোগে অভিযুক্ত কার্ল কুয়েগলি বন্দীদশা থেকে পালানোর মধ্য দিয়ে। সে যখন তার জেল ভেঙ্গে পালিয়েছে তখন সে একটা কাপড়ের দোকানে ঢুকলো এবং সে সেখানে লুকিয়ে রাখা তার এক মিলিয়ন ডলার উদ্ধার…

বিস্তারিত পড়ুন
বিনোদোন শিশুতোষ চলচ্চিত্র 

পিপ্পি নামের ঝুটিওয়ালা সেই মেয়েটি

ছোট্ট একটি মেয়ে কিন্তু তার অসম্ভব শক্তি। একাই দশজন বড় মানুষকে অনায়াসে ঘায়েল করতে পারে। শুনতে রুপকথার মত মনে হলেও তুমি চাইলে এরকম একটি দৃশ্য দেখতে পাবে। বলছি তাহলে সেই গল্প। স্কুলে একদিন অসুস্থ হয়ে পড়ল কারিন নামের ছোট্ট মেয়েটি। চলে এল বাসায়। মা বিখ্যাত লেখক অ্যাসট্রিড লিনগ্রেইন তো চিন্তায় অস্থির। কারিন বলল, ‘মা, একটা গল্প লেখো! যেটা পড়লে আমি সেরে উঠব।’ সেই থেকে অ্যাসট্রিড লিখতে শুরু করলেন  পিপ্পি লংস্টকিং  বইটি। এরপর আরও অনেকগুলো পর্ব লিখেছেন এই সুইডিশ লেখক। মজার বিষয় হলো গল্পের মূল চরিত্র পিপ্পির আসল নাম কি জানো?…

বিস্তারিত পড়ুন
বিনোদোন শিশুতোষ চলচ্চিত্র 

আখি ও তার বন্ধুরাঃ মুহাম্মদ জাফর ইকবাল

জনপ্রিয় সাহিত্যিক মুহম্মদ জাফর ইকবালের গল্প নিয়ে এর আগেও সিনেমা তৈরি হয়েছে। বিশেষ করে দীপু নাম্বার টু সিনেমাটি শিশু কিশোরদের কাছে আজও সমান জনপ্রিয়। এর পর মুক্তিযুদ্ধে কিশোরদের অবদানের কথা স্মরণ করে নির্মিত হয়েছিল আমার বন্ধু রাশেদ। আর এবার তৈরি হলো নতুন আরও একটি শিশুতোষ চলচ্চিত্র। নাম ‘আঁখি ও তার বন্ধুরা’। পরিচালক মোরশেদুল ইসলাম। আঁখি দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী। কিন্তু প্রতিবন্ধী স্কুলে না পড়ে সাধারণ স্কুলে পড়তে আসে। শিক্ষকের আচরণে আঁখি চলে যেতে চায়। তিতু আর তার বন্ধুরা এগিয়ে আসে। তারা আঁখিকে স্বাভাবিকভাবে গ্রহণ করতে চায়। আঁখি জানায়, সে অন্ধ হিসেবে বিবেচিত হতে…

বিস্তারিত পড়ুন