কিশোর কিশোরী সংবাদ ছোট থেকেই যারা বিখ্যাত ফিচার 

আইনস্টাইনের বয়স এখন ৬ বছর

মবিন শিকদার, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় অবাক হচ্ছো?হবারই কথা। বয়স ৬ বছর,প্রস্তুতি নিচ্ছে হাভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার জন্য। ছয় বছর বয়সী বাংলাদেশী বংশোদ্ভুত আইনস্টাইনকে কে না চেনে? ঘটনার শুরু ২০১৩ সালের জুনে। সুবর্ন আইজ্যাক বয়স তখন এক বছর। সে তখন তার মায়ের সাথে বসে যোগ এর অঙ্ক শিখছিলো। সুবর্ণের বাবা রাশীদুল বারী ব্রনেকস কমিউনিটি কলেজের ম্যাথের শিক্ষক। তিনি পাশের রুমে বসে তার ছাত্রদের পরীক্ষার খাতা দেখচিলেন। হঠাৎ পাশের রুম থেকে সুবর্ণের মায়ের কৌতুলহ জড়ানো ডাক পড়লো তার। পাশের রুমে যেতেই সুবর্ণের মা বললো সুবর্ণ এমন কিছু বলে উঠেছে যা তাকে কখনোই শেখানো…

18,332 total views, 48 views today

বিস্তারিত পড়ুন
খেলাধুলা ছোট থেকেই যারা বিখ্যাত সেরাদের গল্প 

বিশ্বের দ্বিতীয় কনিষ্ঠতম গ্র্যান্ডমাস্টারের বয়স মাত্র ১২ বছর

বয়স মাত্র ১২ বছর ১০ মাস ১৩ দিন। আর এই বয়সেই দাবায় গ্র্যান্ডমাস্টার হয়ে গেল চেন্নাইয়ের প্রজ্ঞানানন্দ। শুধু তাই নয়, প্রজ্ঞানানন্দ বিশ্বের দ্বিতীয় কনিষ্ঠতম গ্র্যান্ডমাস্টার। ১৯৯০ সালে ইউক্রেনের সের্জে কারাজকিন ১২ বছর সাত মাস বয়সে গ্র্যান্ডমাস্টার হয়েছিল। তিনি বিশ্বের কনিষ্ঠতম গ্র্যান্ডমাস্টার। সের্জে কারাজকিনের চেয়ে মাত্র তিন মাস বয়স বেশি প্রজ্ঞানানন্দের। এই মুহূর্তে ইতালির অর্টিসেইয়ে গ্রেডিনে ওপেন খেলছে প্রজ্ঞানানন্দ। শনিবার সেখানে অষ্টম রাউন্ডে ইতালির গ্র্যান্ডমাস্টার লুকা মোরোনি জুনিয়রকে হারায় সে।  নেদারল্যান্ডসের ২৫১৪ রেটিংয়ের প্রুইজসার্সের সঙ্গে ড্র করার পর দ্বিতীয় সর্বকনিষ্ঠ গ্র্যান্ডমাস্টার হয় প্রজ্ঞানানন্দ। ২০১৭ সালে ওয়ার্ল্ড জুনিয়র্সে প্রথম গ্র্যান্ডমাস্টার নর্ম পেয়েছিল…

3,782 total views, 8 views today

বিস্তারিত পড়ুন
ছোট থেকেই যারা বিখ্যাত ফিচার বিখ্যাতদের ছোটবেলা 

বিলগেটসের মা কি তাকে জোর করে গন্ডায় গন্ডায় হাউজ টিউটরের কাছে পড়াতেন নাকি নানা নামের কোচিং সেন্টারে পাঠাতেন?

সাফল্য কিভাবে আসে?সাফল্যের জন্য কি কি করতে হয়?কতটুকু চেষ্টা করা উচিত?কখন হাল ছেড়ে দিতে হয়? সফলরা কি করে? কিভাবে তারা সফল হয় এসব নিয়ে ভাবতে গেলে সবার আগে যে নামটি আমাদের সামনে চলে আসে তিনি বিশ্বের সব থেকে সম্পদশালী মানুষ মাইক্রোসফটের কর্ণধার বিলগেটস। তার বাল্যকাল কেমন ছিল?তিনি কিভাবে শুরু করেছিলেন এবং তার শুরুটা কেমন ছিল তা হয়তো আমরা অনেকেই জানি আবার অনেকে জানিনা।  এই বিখ্যাত মানুষটির মা তাকে কি বলতেন? আমাদের মত স্কুলে যেতে বলতেন?এ প্লাসের বন্যা বইয়ে দিতে বলতেন নাকি অন্য কিছু বলতেন? বিলগেটসের মা কি তাকে জোর করে…

3,777 total views, 6 views today

বিস্তারিত পড়ুন
কিশোর কিশোরী সংবাদ ছোট থেকেই যারা বিখ্যাত ছোটদের লেখালেখি বইয়ের দুনিয়া স্কুলের তারকা 

বাংলাদেশের সব থেকে ক্ষুদে লেখক অলীন বাসার ও তার বই ভুতের টিউশনী

এখনতো পড়াশোনার অনেক চাপ তাই বাধ্য হয়েই স্কুলের পর টিচারের কাছে পড়তে হয়।কিন্তু ভেবে দেখোতো যদি তোমার সেই টিচার মানুষ না হয়ে একজন ভূত হয় তাহলে কি অবস্থা হবে? কিংবা ধরো তুমি নিজেই নিজে টিচার হয়ে পড়াতে গেলে এবং গিয়ে দেখলে তোমার ছাত্র বা ছাত্রী আসলে মানুষ নয় বরং ভূতের বাচ্চা! তোমার তখন কি অবস্থা হবে? আজ কেন এতো ভূত নিয়ে কথা বলছি? তার কারণ “ভুতের টিউশনী” নামে একুশে বইমেলায় নতুন একটি বই এসেছে আর বইটি কে লিখেছে জানো? বাংলাদেশের সবথেকে ক্ষুদে লেখক অলীন বাসার যার বয়স মাত্র আট বছর!…

13,905 total views, 2 views today

বিস্তারিত পড়ুন
কিশোর কিশোরী সংবাদ ছোট থেকেই যারা বিখ্যাত পুরস্কার ও সম্মাননা প্রতিযোগিতা 

সন্তানকে মুখস্থ করাবেন নাকি আবিষ্কারের নেশা ধরিয়ে দেবেন সেই সিদ্ধান্ত আপনার

ফাতিহা আয়াত নিউইয়র্ক সিটি ডিপার্টমেন্ট অব এডুকেশনের গিফটেড অ্যান্ড ট্যালেন্টেড প্রোগ্রামের আওতায় ৯৭ নম্বর পেয়ে সিটি ওয়াইড প্রোগ্রামের জন্য মনোনীত হয়ে বর্তমানে জিঅ্যান্ডটি গ্রেড ওয়ানে পড়ছে। ফাতিহা স্টেম ম্যাটারস প্রোগ্রামের আওতায় ব্রুকলিনের এনভায়রনমেন্টাল স্টাডি সেন্টারে ২০১৭ সালের সামার সাফারি ক্যাম্পের জন্য মনোনীত হয় এবং সাফল্যের সঙ্গে অংশ নেয়। প্রবাসে প্রতিভা স্বীকৃতির সর্বাধিক জনপ্রিয় অনুষ্ঠান এনআরবি তারকা অ্যাওয়ার্ডে ‘স্পেশাল ট্যালেন্ট ক্যাটাগরি’তে এ বছর নিউইয়র্ক প্রবাসী ছয় বছরের শিশু ফাতিহা আয়াতকে পুরস্কৃত করা হয়েছে। নিউইয়র্কে বাংলাদেশ কনস্যুলেটের কনসাল জেনারেল শামীম আহসান আয়াতের হাতে এই পুরস্কার তুলে দেন। গণিত ও বিজ্ঞান শিক্ষায় মুখস্থভিত্তিক…

79,124 total views, 112 views today

বিস্তারিত পড়ুন
ছোট থেকেই যারা বিখ্যাত ছোটদের লেখালেখি স্কুলের তারকা 

ক্ষুদে লেখক রাশিকের মিস্ট্রি অব দ্য সুপার ন্যাচারালস

লেখাঃ উজ্জ্বল দাশ,লন্ডন,যুক্তরাজ্য – ক্ষুদে লেখক রাশিকের মিস্ট্রি অব দ্য সুপার ন্যাচারালস বইটি ব্যাপক সাড়া ফেলেছে।বিশ্বকে নানা অপশক্তির হাত থেকে রক্ষা করতে মরিয়া ব্রিটিশ বাংলাদেশি কিশোর মীর রাশীক আহনাফ। বহু বছর আগেকার কথা, পৃথিবীটাকে নিয়ন্ত্রণ করত দুর্দান্ত প্রতাপশালী এক অশুভ শক্তিচক্র। প্রতিনিয়ত ধ্বংসের মুখোমুখি ধরণিকে নিজের বুদ্ধিমত্তার জোরে টিকিয়ে রাখার নিরন্তর চেষ্টায় শেষতক সফল কিশোর লেখক রাশীক। কল্পনাপ্রসূত রহস্যময় প্রথম গল্পেই পাঠকের মন কেড়েছে এই খুদে লিখিয়ে। আট বছর বয়সে স্কুলের পত্রিকায় ছাপা হওয়া কবিতা দিয়ে রাশীকের শুরুটা হয়েছিল ঠিক; তবে মায়ের সঙ্গে স্কুলের লম্বা ছুটি কাটাতে গিয়ে অনেকটা খেয়ালি…

6,436 total views, 1 views today

বিস্তারিত পড়ুন
ছোট থেকেই যারা বিখ্যাত স্কুলের তারকা 

রিয়া দিয়া ক্ষুদে মহাতারকা

২০১৪ সাল। এক অনুষ্ঠানে যমজ দিয়া ও রিয়াকে নিয়ে গেছেন বাবা সুজন কান্তি নাথ। সেখানেই তাঁর এক বন্ধু দেখতে পান রিয়া ও দিয়াকে। সেই বন্ধু কাজ করেন একটি বিজ্ঞাপনী সংস্থায়। বন্ধুর এমন সুন্দর টুইন বেবিকে দেখে সেদিনই তিনি জানতে চান, তাঁদের মিডিয়ায় কাজ করতে দেবেন কি না? বাবা খানিকক্ষণ ভেবে বলেন, সব কিছু জেনে-বুঝে তার পরই সিদ্ধান্ত নেবেন। হঠাৎ একদিন একদিন সেই বন্ধুই ডেকে পাঠান দিয়া ও রিয়ার বাবাকে। রবির একটি টেলিভিশন বিজ্ঞাপনে গল্পের প্রয়োজনেই একজোড়া যমজ মেয়ে দরকার। সব কিছু শুনে সম্মতি দেন সুজন কান্তি নাথ। তাঁর মতে, টিভিসির…

বিস্তারিত পড়ুন
ছোট থেকেই যারা বিখ্যাত 

বয়স ১৪ তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সে!

ইংল্যান্ডের লিকেস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৪ বছরের মুসলিম কিশোর হলো গণিতের অধ্যাপক। তাকে লিকেস্টার বিশ্ববিদ্যালয় অতিথি অধ্যাপক রূপে নিযুক্ত করা হয়েছে। রিপোর্ট অনুযায়ী শিক্ষার্থীদের পড়ানোর পর এই বিশ্ববিদ্যালয়ে নিজের ডিগ্রিও নিচ্ছেন। তাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বকনিষ্ঠ ছাত্র এবং অধ্যাপক বলা হয়। গণিতের প্রতি অবিশ্বাস্য জ্ঞান দেখার পর তার আত্মীয় স্বজন তাকে “মানব ক্যালকুলেটর” বলেছে। ইয়াশা এসলের বাবা মুসা এসলে প্রতিদিন তাকে গাড়িতে করে বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়ে আসেন এবং ছেলের এই কৃতিত্বতে গর্বিত বোধ করেন। ইয়াশা ডিগ্রি কোর্স করার পর পিএইচডি করবেন। অধ্যাপক ইয়াশা এসলে বলেছেন, আপনার জীবনের এটা শ্রেষ্ঠ বছর। আমার চাকরির করার থেকে বেশি…

বিস্তারিত পড়ুন
ছোট থেকেই যারা বিখ্যাত স্কুলের তারকা 

রাফি কিন্তু এখনো সেরা

ক্লাস ওয়ানে পড়ার সময় আমরা যখন অ আ ক খ পড়া এবং লেখা শেখা নিয়ে ব্যস্ত ঠিক  সময় একটি ছেলে মাইক্রোফোন হাতে সুরেলা কন্ঠে গান গেয়ে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিতে ব্যস্ত। হ্যা বলছিলাম রাকিব রায়হান রাফির কথা। ২০১১ সালে ক্ষুদে গানরাজ প্রতিযোগিতায় চতুর্থ স্থান লাভ করলেও শ্রোতা ও দর্শকদের মনে সে বরাবরই এক নাম্বার হয়ে আছে। বিজয়ীদের আমাদের কারো মনে না থাকলেও রাফিকে আমরা মনে রেখেছি।২০১১ সালের ক্ষুদে গানরাজে তার অবস্থান ছিল চতুর্থ। তখন রাফি নীলফামারীর কালেকটরেট কোয়ালিটি স্কুলে প্রথম শ্রেণির ছাত্র ছিল। গানের এই যাদুকর কিন্তু পড়ালেখায়ও অনেক ভাল।…

বিস্তারিত পড়ুন