ক্যাডেট কলেজ বইয়ের দুনিয়া 

ক্যাডেট লাইফ নিয়ে সেরা কিছু বই

ক্যাডেট কলেজ একটি স্বপ্নময় ভূবন। যে এই ভূবনে প্রবেশ করেনি সে এর সৌন্দর্য এর প্রতি ভালোবাসা কখনো অনুভব করতে পারবে না।তবে যাদের ভাগ্যে সেই সোনালী শৈশব কৈশর কাটানোর সুযোগ হয়নি তারা চাইলেই কিছুটা জেনে নিতে পারেন কেমন হয় সেই জীবনটা। একটি কিশোর যখন বার তের বছর বয়সে বাবা মাকে পরিবারের সবাইকে ছেড়ে ছয় বছরের জন্য একটি আবাসিক স্কুলে(কলেজে) গিয়ে ওঠে তখন তার মানসিকতা কেমন থাকে এবং সেই ছয় বছর সে কিভাবে কাটায় তা কিছু ক্যাডেট তুলে ধরেছেন সাহিত্যের ভাষায়।

বিস্তারিত জানাচ্ছেন লেখার স্কুলের নবীন ছাত্রঃ জাজাফী


ক্যাডেট লাইফ নিয়ে লেখা কিছু বইঃ

খাকি চত্বরের খোয়ারি, শাহাদুজ্জামান

বইঃ খাকি চত্বরের খোয়ারি

লেখকঃ শাহাদুজ্জামান (মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজ)

প্রকাশকঃ বেঙ্গল পাবলিকেশান্স

মূল্যঃ ২২০ টাকা।

গল্প থেকেঃ

কী নিয়ে গল্প হবে আজ? গল্প হোক খাকি চত্বর নিয়ে। ডুবোনৌকার মতো মনের ভেতর ডুবে থাকা চোরাগোপ্তা গল্পগুলো তুলে আনা যাক। আমার হাতে খাকি চত্বরে আমার শেষদিনের ছবি। পাসিং আউট প্যারেডের দিন ছবিটি তোলা। ছবিতে খাকি পরা কতগুলো নবীন কিশোর। সবার চোখে-মুখে ভিড় করে আছে স্বপ্ন। এ-ছবিটি যখন তোলা হচ্ছে আমরা কেউ জানি না কে কোথায় গিয়ে ঠেকবো। খাকি পোশাকে আমাকে কেমন অদ্ভুত লাগছে। বেল্ট, বুট, ক্যাপের সঙ্গে চোখে চশমা, কেমন বেমানান। আমাকে যেন কে ধরে-বেঁধে এনে ঢুকিয়ে দিয়েছে ওই পোশাকটির ভেতর। ওই তো সামনের সারির বাম দিকে ইফতি….. এভাবেই শুরু হয়েছে খাকি চত্বরের খোয়ারি বইটি। শাহাদুজ্জামান বর্তমান সময়ের অন্যতম শক্তিমান লেখক। তিনি মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজ থেকে পড়াশোনা করেছেন। পরবর্তীতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ থেকে ডাক্তারী বিদ্যায় পারদর্শিতা অর্জন করেছেন। খাকি চত্ত্বরের খোয়ারি তার লেখা ক্যাডেট লাইফের সেরা গল্প যেখানে তিনি মিলন নামে এক ক্যাডেটকে নিয়ে নিদারুন এক গল্প সাজিয়েছেন। এক সকালে মিলনের কাটা লাশ পাওয়া যায় রেল লাইনের ধারে।


ক্লাস সেভেন-১৯৭৮ (শাকুর মজিদ)

বইঃ ক্লাস সেভেন-১৯৭৮

লেখকঃ শাকুর মজিদ (ফৌজদারহাট ক্যাডেট কলেজ)

প্রকাশকঃ অন্যপ্রকাশ।

বই থেকেঃ

শাকুর এখন ক্লাস সেভেনে- হুমায়ুন আহমেদ

আমার দখিন হাওয়ার বাসায় অনেক দিন ধরে একটা বই পড়ে আছে। লেখকের নাম শাকুর মজিদ। বইটির নাম – ‘ক্লাস সেভেন ১৯৭৮’।
বইটির ভুমিকা পড়লাম। মুক্তধারার চিত্তবাবুকে নিয়ে লেখা অংশটা পড়ে যথেষ্টই মজা পেলাম।

মূললেখা এক সিটিং এ প্রথম দশ পাতা পড়ি। যদি ভাল লেগে যায় তবেই পুরোটা পড়া হয়। শাকুরের বইয়ের পঞ্চম লাইনটি পড়ে আমি বুঝলাম লেখাটা ভাল হবে। পঞ্চম লাইনে লেখা – “অফিসে ইত্তেফাক পত্রিকা এলেই আমি শফিক স্যারকে জিজ্ঞেস করতাম, স্যার আমার রিজাল্ট বারইছেনি?” ’বারইছেনি’ খাঁটি সিলেটি শব্দ। সিলেটবাসীরা নিজেদের কথ্য ভাষা নিয়ে সামান্য সংকুচিত থাকেন। শাকুর সরাসরি এই ভাষা ব্যবহার করছে। তারচেয়েও বড় কথা, মূল গদ্যে হঠাৎ হঠাৎ সিলেটি ভাষা ঢুকিয়ে তিনি গদ্য ধারায় ঢেউ এর মত তৈরী করেছেন। এই কাজ তিনি ইচ্ছাকৃত ভাবে করেছেন না-কি অজানে- করেছেন তা আমি জানি না। যে ভাবেই থাকুন এতে তাঁর গদ্য স্বাদু হয়েছে।

বইটিতে শাকুর তার কথা আন-রিক ভঙ্গিতে বলেছে। সে সহজিয়া ভঙ্গিতে তার স্বপ্ন এবং স্বপ্ন ভঙ্গের কথা, আনন্দ এবং বেদনার কথা লিখে গেছে। আমি তার চোখে পাবলিক স্কুলের ছবি দেখতে পেয়েছি। খেলার মাঠ, দুরের পাহাড়। অন্যকে নিজের দেখা ছবি গল্পের মাধ্যমে দেখানো সহজ কর্ম না।


এক দুষ্টু ক্যাডেটের গল্প,ইকরাম কবীর

বইঃ এক দুষ্টু ক্যাডেটের গল্প

লেখকঃ ইকরাম কবীর (ঝিনাইদাহ ক্যাডেট কলেজ)

প্রকাশকঃঅন্বেষা প্রকাশন

মূল্যঃ ১৬০ টাকা।

বই সম্পর্কেঃ

বাইরে থেকে ক্যাডেট কলেজগুলোকে অনেকের কাছে স্বপ্নপুরী মনে হয়। ওখানে বাচ্চারা খুব ভাল থাকে। আবার কেউ-কেউ মনে করেন ইট-পাথরের দালানের মধ্যে কিছু রুক্ষ ছাত্র-ছাত্রীর বসবাস। আসলে এই কলেজগুলোতে যারা বেড়ে ওঠে তাদের তৈরী করা হয় সশশ্রবাহিনীর উপযুক্ত করে। তিনশো-ষাঠ ডিগ্রি শিক্ষায় তাদের গড়ে তোলা হয়। সবাই হয়তো সশশ্রবাহিনীতে যোগ দেয় না, তবে তিনশো-ষাঠ ডিগ্রি শিক্ষা লাভ করে সারা দুনিয়ায় ছড়িয়ে পরে। এই ইট-পাথরের রুক্ষ দালান-কোঠাই এই ক্যাডেটদের কাছে স্বপ্নপুরী হয়ে যায়, যা তারা সারা জীবনেও ভুলতে পারে না। বার-বার ফিরে যেতে চাই তাদের কলেজে। এই মানসিকতা তাদের ভেতর কেন জন্ম নেয় তা কিছুটা আঁচ করা যাবে এক দুষ্টু ক্যাডেটটির এই গল্প পড়ে


ক্যাডেটের ডায়েরি,শাকুর মজিদ

বইঃ ক্যাডেটের ডায়েরি

লেখকঃ শাকুর মজিদ (ফৌজদারহাট ক্যাডেট কলেজ)

প্রকাশকঃ অন্যপ্রকাশ

মূল্যঃ ২২৫টাকা

বই সম্পর্কেঃ

লেখকের ক্যাডেট কলেজের জীবন থেকে নেয়া কিছু ক্ষণ, ঘটনা, অভিজ্ঞতা আর অনুভূতির সমষ্টি এবং দলিল। এই ডায়েরি লেখকের মনের আনন্দ, সংকল্প, বেদনা, গর্ব, হতাশা, দুঃখ-কষ্ট, ফেলে আশা মা-বাবা আর পরিজনদের নিয়ে উৎকণ্ঠা, আর বিভিন্ন মিশ্র অনুভূতির বহির্প্রকাশ। ডায়েরির সময়কাল ১৯৮০-১৯৮৩, যখন লেখকের বয়স ১৪ থেকে ১৭ বছর। ৬ বছরের ক্যাডেট কলেজ জীবনের নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণীর সময়ের গল্প। ডায়েরিটি পড়ে সে সময়ের ক্যাডেটের দৈনিক জীবন, কলেজের রুটিন, রুটিন বহির্ভূত জীবন, নিয়মনীতি সম্বন্ধে ধারণা পাওয়া যায়। তৎকালীন ক্যাডেটের জীবনে বিস্মৃত প্রায় ‘কাগুজে চিঠি’ লেখার অভ্যাস লক্ষণীয়। অনেক স্থানেই তা বিধৃত হয়েছে। ‘পড়াশোনায় মন দিতে হবে’।


হ্যালো ক্যাডেটস,মোস্তফা মামুন

বইঃ হ্যালো ক্যাডেটস

লেখকঃ মোস্তফা মামুন (সিলেট ক্যাডেট কলেজ)

প্রকাশকঃ বিদ্যাপ্রকাশ

মূল্যঃ ২৪০টাকা

বই সম্পর্কেঃ

বিশ্ববিদ্যালয়ে বিষয় ছিল আইন। কিন্তু আইনজীবী আর হওয়া হয়নি। এমন আরো অনেক না হওয়ার ভিড় পেরিয়ে যতসামান্য যা হয়েছে তার পুরোটাই লেখালেখিকেন্দ্রিক। লেখক এবং সাংবাদিক, আপাতত এটাই নামের পাশের পরিচয় । জন্ম মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায়। তারপর সিলেট ক্যাডেট কলেজের রোমাঞ্চকর জীবন। সেখান থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। সম্মান প্রথম বর্ষ থেকেই ক্রীড়া সাংবাদিকতা নামের দারুণ আনন্দময় এক পেশায় জড়িয়ে পড়া। খেলা দেখতে আর লিখতে ভ্ৰমণ করা হয়ে গেছে ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, স্পেন, ইতালি, সুইজারল্যান্ড, নরওয়ে, দক্ষিণ আফ্রিকা, দেশ। বন্ধু-আডডা-মানুষ এসব নিয়ে মেতে থাকতে ভালো লাগে। বই পড়া, খেলা দেখাও আছে পছন্দের তালিকায়। কিন্তু সব ছাপিয়ে শেষ পর্যন্ত সবচেয়ে পছন্দের কাজ লেখা। এই নিয়ে চলছে জীবন। ভালোই তো চলছে!


রক ক্যাডেট, আলীম হায়দার

বইঃ রক ক্যাডেট

লেখকঃ আলীম হায়দার (রংপুর ক্যাডেট কলেজ)

প্রকাশকঃ জয়তীপ্রকাশ

মূল্যঃ ১৩৫টাকা

বই সম্পর্কেঃ

ক্যাডেট তো বটেই, সাধারণ পাঠকেরাও শব্দের খেলায় সাজানো এক কৈশোর জীবনের দুরুন্ত সময়ের স্বাদ পেতে পারেন কাহিনীর ঘনঘটায়। চমৎকার! পৃষ্ঠায় পৃষ্ঠার কখন কেটে যাবে সময় – টের পাওয়া ভার। প্রাণচঞ্চল ভাষার ব্যবহার যা সহজেই বোধগম্য। ক্যাডেট জীবন সম্পর্কে জানার জন্য ভাল মানের একটি বই।এক কথায় অসাধারণ। লেখক সুন্দর ও সুনিপুন ভাবে তুলে ধরেছেন ক্যাডেট লাইফে ঘটে যাওয়া নানা ছোট বড় আনন্দ বেদনার গল্প।


মাথিউরার গেন্দাফুল,শাকুর মজিদ

বইঃ মাথিউরার গেন্দাফুল কিংবা ফৌজদারহাটের মেরিগোল্ড

লেখকঃ শাকুর মজিদ (ফৌজদারহাট ক্যাডেট কলেজ)

প্রকাশকঃ অক্ষরপত্র প্রকাশনী

মূল্যঃ ১৩০টাকা

বই সম্পর্কেঃ

২০১৬ সালের অমর একুশে বইমেলায় বিয়ানীবাজারের লেখক শাকুর মজিদের ৪টি ভিন্ন ভিন্ন স্বাদের বই বেরিয়েছিল। তার একটি পাঞ্জেরির শাখা প্রতিষ্ঠান অক্ষরপত্র থেকে বেরিয়েছে ১২টি স্মৃতিগদ্য নিয়ে লেখা মাথিউরার গেন্দাফুল কিংবা ফৌজাদারহাটের মেরিগোল্ড। এই গ্রন্থটিও তাঁর আশৈশব লালিত দু’টো অঞ্চলকে ঘিরে পরবর্তী জীবনে বিভিন্ন বিষয়ে অর্জন করা কিছু বোধকে কেন্দ্র করে লেখা স্মৃতিগদ্য।শাকুর মজিদের বেশীর ভাগ রচনাই আত্মজৈবনিক। কখনো ভ্রমণকথা, কখনো আত্মস্মৃতি কিংবা স্মৃতিকথার পরিসরে তিনি প্রকাশ করেন তার নিজের কথা। শাকুর মজিদ জানান – “এটি একটি স্মৃতিগদ্য সংকলন। লেখাগুলো লিখতে গিয়ে আমি বারবার হাতড়ে বেড়িয়েছি আমার সবচেয়ে বড়ো সম্পদ, আমার শৈশবের স্মৃতিকে। আর শৈশবের এই জায়গাগুলো দখল করে রেখেছে আমার জন্মগ্রাম মাথিউরা আর ফৌজদারহাট ক্যাডেট কলেজ। আমার অবচেতনেই একসময় মাথিউরার গেন্দাফুল ফৌজদারহাটে গিয়ে মেরিগোল্ডে পরিনত হয়ে গিয়েছিলো। আমার সবগুলো গল্পই সেসব নিয়ে।“ বইটির প্রচ্ছদে লেখকের নিজের তোলা একটা আলোকচিত্র ব্যাবহার করা হয়েছে। নিজের গ্রামের বাড়ির দেয়ালে পড়েছে তার ছায়া।


ক্যাডেট নাম্বার ৫৯৫, মোস্তফা মামুন

বইঃ ক্যাডেট নাম্বার ৫৯৫

লেখকঃ মোস্তফা মামুন (সিলেট ক্যাডেট কলেজ)

প্রকাশকঃ অনন্যা

মূল্যঃ ৬০টাকা

বই সম্পর্কেঃ

সিলেট ক্যাডেট কলেজের রোমাঞ্চকর জীবন। সেখান থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। সম্মান প্রথম বর্ষ থেকেই ক্রীড়া সাংবাদিকতা নামের দারুণ আনন্দময় এক পেশায় জড়িয়ে পড়া। খেলা দেখতে আর লিখতে ভ্ৰমণ করা হয়ে গেছে ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, স্পেন, ইতালি, সুইজারল্যান্ড, নরওয়ে, দক্ষিণ আফ্রিকা, দেশ। বন্ধু-আডডা-মানুষ এসব নিয়ে মেতে থাকতে ভালো লাগে। বই পড়া, খেলা দেখাও আছে পছন্দের তালিকায়। কিন্তু সব ছাপিয়ে শেষ পর্যন্ত সবচেয়ে পছন্দের কাজ লেখা। এই নিয়ে চলছে জীবন। ভালোই তো চলছে! ক্যাডেট নাম্বার ৫৯৫ এটি একটি ছোট পরিসরের লেখা। তিনটি এরকম ছোট পরিসরের লেখা নিয়ে একত্রে বেরিয়েছে “হ্যালো ক্যাডেটস”


দুই দুই তিন শুণ্য,ফেরদৌস জামান রিফাত

বইঃ দুই দুই তিন শুণ্য

লেখকঃ ফেরদৌস জামান রিফাত (ঝিনাইদাহ ক্যাডেট কলেজ)

প্রকাশকঃ ইন্তামিন প্রকাশন

মূল্যঃ ১৫০টাকা

বই সম্পর্কেঃ

যে ছেলেটা সকালের পিটিতে দুই কিলোমিটার দৌড়াতে গিয়ে বমি করে দেয়, সেই একই ছেলে কিন্তু বিকালে ফুটবল মাঠে তুফান তুলতে পারে। মারদাঙ্গা ডিফেন্ডার এবং স্পাইডারম্যান লাইক গোলকিপারকে নাকানিচুবানি খাওয়াতে পারে মিনিটে মিনিটে। কিংবা নিজ দলের ডিফেন্সে গ্রেট ওয়াল হয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে পারে, প্রতিপক্ষ দলের তুখোড় স্ট্রাইকারকে মেনিবিড়াল বানিয়ে রাখতে পারে পুরোটা ম্যাচ জুড়ে। মর্নিং শোজ দ্য দে, বাট নট অলওয়েজ। তাই সেই বন্ধু কিংবা জুনিয়র ছেলেটাকে নিয়ে সতর্কতার সাথে হাসাহাসি করা উচিত। কলেজ লাইফের দারুন সব স্মৃতি উঠে আসে রিফাতের লেখায়।


Cadet Rommo
ক্যাডেট রম্য,রাব্বী আহমেদ

বইঃ ক্যাডেট রম্য

লেখকঃ রাব্বী আহমেদ (– ক্যাডেট কলেজ)

প্রকাশকঃ বইপত্র প্রকাশনী

মূল্যঃ ২০০টাকা

বই সম্পর্কেঃ

ক্যাডেট কলেজ সেনানিয়ন্ত্রিত এক আধাসামরিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। একদিকে কঠোর সেনা শাষণ অন্যদিকে কৈশোরের দস্যিপনা। এর মাঝে এই চার দেয়ালের আবদ্ধ জীবনে অহরহ ঘটে বিচিত্র সব মজার ঘটনা। ‘ক্যাডেট রম্য’ তেমনই কিছু মজার ঘটনার সংকলন যার প্রেক্ষাপট ক্যাডেট কলেজ।

পৃথিবীর ভেতরেই অন্য এক পৃথিবীর গল্প। যে গল্প পাঠককে নিয়ে যাবে একদল খাকি ইউনিফর্ম পরা কিশোর, নারী বিবর্জিত চত্বর, পিটি, প্যারেড, অ্যাডজুটেন্ট, স্টাফ, গেমস, হাউস প্রতিযোগিতাসহ বিচিত্র কর্মকান্ডে ভরপুর এক অদ্ভুত রঙ্গমঞ্চে। সেই রঙ্গমঞ্চে প্রত্যেকেই যেন দারুণ অভিনয় শিল্পী। কেউ বা রাতের অন্ধকারে প্রশাসনের চোখ এড়িয়ে বের হয়ে যায় নতুন নতুন অ্যাডভেঞ্চারে, কারো কারো জীবনে বেসামরিক প্রেম এলে আমূল বদলে যায় আচরণ।

এভাবেই ক্যাডেট কলেজ নামক এক অচেনা জগতের ভিন্ন ভিন্ন মজার ঘটনাগুলো একাকার হয়ে মিলিয়ে যায় ‘ক্যাডেট রম্যে’। প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম যে ঘটনাগুলো বয়ে বেড়াচ্ছে স্মৃতিময় খাকি চত্বর। সময়ের ধারায় শুধু বদলায় অভিনয় শিল্পীরা।


Cadate Ros
ক্যাডেট রস,মহিউদ্দিন কাউসার

বইঃ ক্যাডেট রস

লেখকঃ মহিউদ্দিন কাউসার (– ক্যাডেট কলেজ)

প্রকাশকঃ রূপ প্রকাশনী

মূল্যঃ ১৪০টাকা

বই সম্পর্কেঃ

ক্যাডেট কলেজে প্রতিনিয়তই নানা রকম ঘটনার জন্ম হয়। সেগুলোতে মিশে থাকে হাসি আনন্দ বেদনা।সেগুলোই কখনো কখনো হয়ে ওঠে চিরকালীন আনন্দের খোরাক।মহিউদ্দিন কাউসার সেই সব ঘটনাকে সুন্দর করে রসালো করে উপস্থাপন করতে সিদ্ধ হস্ত। তার লেখা ক্যাডেট রস শুধু ক্যাডেট নয় নন ক্যাডেটরাও বেশ উপভোগ করে। প্রথম আলোর ফান ম্যাগাজিন রস+আলোতে যা প্রকাশ হয়েছে অনেক বার।এই বইটি সেরকম সব লেখার সংকলন বলা যেতে পারে যা পাঠককে মুগ্ধ করবে।


বুড়ো বালকের দল,আলীম হায়দার

বইঃ বুড়ো বালকের দল

লেখকঃ আলীম হায়দার  (রংপুর ক্যাডেট কলেজ)

প্রকাশকঃ জয়তীপ্রকাশ

মূল্যঃ ১৩৫টাকা

বই সম্পর্কেঃ

ক্যাডেট তো বটেই, সাধারণ পাঠকেরাও শব্দের খেলায় সাজানো এক কৈশোর জীবনের দুরুন্ত সময়ের স্বাদ পেতে পারেন কাহিনীর ঘনঘটায়। চমৎকার! পৃষ্ঠায় পৃষ্ঠার কখন কেটে যাবে সময় – টের পাওয়া ভার। প্রাণচঞ্চল ভাষার ব্যবহার যা সহজেই বোধগম্য। ক্যাডেট জীবন সম্পর্কে জানার জন্য ভাল মানের একটি বই।এক কথায় অসাধারণ। লেখক সুন্দর ও সুনিপুন ভাবে তুলে ধরেছেন ক্যাডেট লাইফে ঘটে যাওয়া নানা ছোট বড় আনন্দ বেদনার গল্প।


ছবি: সংগ্রহীত

আমার ছিল খাকি পরা ছয় বছরের প্রেম
বুকের উপর যত্ন করে লেখা ছিল নেম
দুই কাঁধে দুই অ্যাপুলেটে ছিল কিছু দাগ
হৃদয় ভরা স্বপ্ন ছিল,ছিলো অনুরাগ
ছয় বছরের জীবনটাতে ছিল কতই সুখ
পাশে ছিল বন্ধু স্বজন ভীষণ প্রিয় মুখ

স্টেশানে থামলো গাড়ি,এবার যেতে হবে
ছয় বছরের প্রেম তবুও হৃদয় মাঝে রবে
ফিরবেনা আর একজীবনে খাকি পরার দিন
যে খাকিতে জমে গেছে ভালবাসার ঋণ
ছয় দাগের ঐ অ্যাপুলেটে রাখি যখন হাত
স্মৃতি গুলো ভেসে ওঠে,নিরব অশ্রুপাত।


ছয় বছরে এমনই প্রেম হয়েছিল জমা
শুরু আছে শেষে কভু হয়না দাড়ি কমা
খাকি পরা ছয় বছরের স্মৃতি চোখে ভাসে
খুজেঁ ফিরি বন্ধু গুলো আমার আসেপাশে
খাকিপরা প্রেমে ছিলাম একসুতোতে বাধা
এমন করে ক’জন পারে একই সাথে কাঁদা।

আর শুনিনা শেষ বিকেলে বিউগলের সুর
কে যে কোথায় আছে এখন,কে যে কত দূর
খাকি প্রেমের ছয়টা বছর মনে পড়ে খুব
ইচ্ছে করে যাই ছুটে যাই,স্মৃতিতে দেই ডুব
আমার ছিল খাকি পরা ছয় বছরের প্রেম
বুকের উপর যত্ন করে লেখা ছিল নেম।
…………

খাকি পরা প্রেম
লেখাঃ জাজাফী


97,629 total views, 49 views today

Facebook Comments

আরও অন্যান্য লেখা