খেলাধুলা সাইকেল স্ট্যান্ট 

সাইকেল স্টান্টঃ সময়ের জনপ্রিয় তম বিষয়,তরুণদের প্রথম পছন্দ

ডেভিড কপারফিল্ড কিংবা বাংলাদেশের জুয়েল আইচ কিংবা বর্তমানের সব থেকে জনপ্রিয় ম্যাজিশিয়ান ডায়নামোর ম্যাজিক দেখে আমরা যেমন আনন্দিত হই তেমনি আমাদের চারপাশে রয়েছে আনন্দের অনেক বিষয়।তেমনই একটি অত্যন্ত জনপ্রিয় বিষয় সাইকেল স্টান্ট। উন্নত বিশ্বে সাইকেল স্টান্টের সুচনা অনেক আগে হলেও বাংলাদেশে বিগত কয়েক বছরে এর জনপ্রিয়তা বেড়েছে। সাইকেল স্টান্ট মুলত সাইকেল নিয়ে বিভিন্ন কসরত দেখানো। কিশোর তরুণদের কাছে যা বর্তমানে অত্যন্ত জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। বাংলাদেশের আনাচে কানাচে তাই গড়ে উঠেছে অনেক সাইকেল স্ট্যান্ট গ্রুপ। বিডি সাইক্লিস্টের কথা যেমন প্রচুর আলোচিত হয়তো সেভাবে অন্যদের কথা আলোচিত হয়নি। এমনই একটি সাইকেল স্ট্যান্ট গ্রুপ নাটোর এক্সট্রিম স্টান্টার্জ (এনইএসজে) Natore Extreme Stunterz » NESZ  সাইকেল স্টান্টের আদ্যপান্ত নিয়ে কথা হলো এই গ্রুপের অন্যতম সদস্য এবং অত্যন্ত জনপ্রিয় স্টান্টবাজ শেখ রিফাদ মাহমুদের সাথে। সাইকেল স্টান্টের দক্ষতা দেখিয়ে সে প্রতিনিয়ত মুগ্ধ করে হাজারো মানুষকে। ফলশ্রুতেতে তার ফেসবুকে ফলোয়ারও বেড়েছে হুহু করে। কথা হলো আমাদের এই প্রতিভাবান বন্ধুর সাথে।
 
নাটোর সরকারি বালক উচ্চবিদ্যালয়ে ক্লাস নাইনে পড়ুয়া রিফাদ ২০১৫ সালে প্রথম ইউটিউবে স্টান্টের ভিডিও দেখে মুগ্ধ হয়। সে ভাবে ইস আমিও যদি এমনটি পারতাম। সেই আমি যদি কথাটিকে সত্যি করতে সত্যি সত্যিই সে সাইকেল নিয়ে নেমে পড়লো এবং ক্রমাগত অনুশীলনের ফলে সে হয়ে উঠলো দারুন এক অভিজ্ঞ সাইকেল স্টান্টবাজ।
রিফাদের ভাষায় আমাদের দেশে এটি তেমন জনপ্রিয়তা ছিল না তবে ইদানিং এটি জনপ্রিয়তা পাচ্ছে।আক্ষেপ করে সে বললো স্টান্ট করার মত জায়গার খুবই অভাব রয়েছে।সব সময় ওরা ফাকা রাস্তা পেলে  স্টান্ট করে তবে দেখা যায় রাস্তা ফাঁকা পাওয়াটাও খুব কঠিন হয়।
অনেক দেশে স্টান্ট রাইডিং কে নিয়ে বিভিন্ন ইভেন্টের আয়োজন করা হয় । কিন্তু বাংলাদেশে তেমন সুযোগ সুবিধ নেই । রিফাদ আরো বললো ২০১৬ সালের ৫ আগষ্ট Natore Extreme Stunterz >> NESZ নামের একটি গ্রুপ প্রতিষ্ঠা করি । বর্তমানে আমি এই গ্রুপের President এর দায়িত্ব পালন করছি ।
আমার গ্রুপে ৩০+ মেম্বার আছে । পড়াশোনার পাশাপাশি বিকালে সবাই স্টান্ট প্রাক্টিস করে । এতে শরীর ভালো থাকে এবং মাদক থেকে দূরে থাকা সম্ভব হয় । স্টান্ট করার ফলে প্রতিযোগীতার মনোভাব সৃষ্টি হয় যার ফলে মাদক থেকে দূরে থাকা যায় । সেফটি গার্ড ব্যবহার করলে ছোট খাটো দূরঘটনা এড়ানো সম্ভব । আমাদের দেশে স্টান্ট রাইডিং কে ভালো চোখে দেখা হয় না । এদেশে স্টান্ট রাইডিং কে সার্কাস হিসেবে বলা হয় । কিন্তু স্টান্ট ক্রিকেট,ফুটবলের মত একটি খেলা । আমরা স্টান্ট করার ক্ষেত্রে সরকারি বেসরকারি কোন সুযোগ – সুবিধা পাইনা । যদি সুযোগ সুবিধা পাওয়া যেত তাহলে স্টান্ট এর মধ্যমে বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশ কে আরো ভালোভাবে উপস্থাপন করা যেত । আমি চাই বাংলাদেশ সরকার যাতে স্টান্ট করার জন্য জায়গার ব্যবস্থা করে দেয় । আমরা স্টান্ট রাইডিং এর মাধ্যমে মাদক থেকে দূরে থাকার জন্য তরূণ সমাজ কে মেসেজ দিতে চাই!!
এ ব্যাপারে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি । ছোটদেরবন্ধু পেজের নিয়মিত ভিজিটরদের জন্য এখানে স্টান্টের ভিডিও শেয়ার দেওয়া হলো।

93,304 total views, 1 views today

Facebook Comments

আরও অন্যান্য লেখা